28% GST শেষ ? ভারতের খারাপ কর ব্যবস্থা পরিবর্তন করছে মোদী সরকার

সব সংবাদ : কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি এদিন ইঙ্গিত দিয়েছেন যে, আগামী কয়েকদিনের মধ্যে GST অনেকটা কমিয়ে দেবেন। উনি বলেন, আমাদের লক্ষ্য ১২ থেকে ১৮ শতাংশ GST যে সমস্ত দ্রব্যে আছে। সে গুলিকে কম করে নতুন ট্যাক্স স্লাপ করবেন। অর্থমন্ত্রী আরও বলেন ৫ শতাংশ GST যেগুলি আছে, সেগুলি কোনরকমে বাড়ানো হবে না। ২৮ শতাংশ GST প্রায় তুলে দেওয়া হবে। শুধুমাত্র অ্যালকোহল, তামাক, সিগারেটে সহ নেশা দ্রব্যের উপর ২৮ শতাংশ GST থাকবে।

আরও পড়ুন : পেঁয়াজ রুটি খেয়ে ক্ষমতায় আসা যায়, ক্ষমতায় টিকে থাকা যায় না

অরুন জেটলি বলেন, সাধারণ মানুষের ব্যবহৃত জিনিসের মধ্যে একমাত্র সিমেন্ট এবং গাড়ির পার্টসে ২৮ শতাংশ GST আছে। এর আগে আমরা সিমেন্ট ছাড়া বিল্ডিং বানানোর বাকি দ্রব্যের উপরে জিএসটি কমিয়ে দিয়েছি। এবার সিমেন্টের উপর GST কম করে নিচের শ্রেণীতে আনলে প্রায় নেশা জাতীয় দ্রব্য ছাড়া আর কিছুতেই ২৮ শতাংশ GST থাকছে না।

আরও পড়ুন : লক্ষ টাকার চাকরি ছেড়ে সেনায় যোগদান করলেন বিজেপি নেতার মেয়ে!

জেটলি তার ফেইসবুক পেজ এ লেখেন, পৃথিবীর মধ্যে সবথেকে ভারতের খারাপ করব্যবস্থা খারাপ ছিল। রাজ্য আর কেন্দ্র সরকার যে যার মত আলাদা আলাদা ট্যাক্স চাপিয়ে দিত। আগের সময়ে ১৭ রাজ্যে এমন করব্যবস্থা ছিল যেখানে সাধারণ মানুষকে অনেক বেশি কর দিতে হতো। কোন কোন রাজ্যে ৩১ শতাংশ জি এস টি দিতে হতো।

আরও পড়ুন : ভারত আর রাশিয়া মিলে সবথেকে বড় সৈন্য মহড়া করতে চলেছে

১ লা জুলাই , ২০১৭ থেকে জিএসটি চালু হওয়ার পরে ২২৬ টি দ্রব্য এমন ছিল যাতে ২৮ শতাংশ জিএসটি ছিল। ১৮ মাসে ১৯৮ টি দ্রব্যের উপর ২৮ শতাংশের জিএসটি তুলে দিয়ে এখন মাত্র ২৮ টি দ্রব্যের উপরে ২৮ শতাংশ জিএসটি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন : ISRO গড়তে চলেছে রেকর্ড ! NASA কে টপকে এগিয়ে দেশ

দীর্ঘদিন ধরে বিরোধীরা বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষকে জিএসটির ভয় দেখিয়ে ক্ষেপিয়ে তুলেছিল। বহু জিনিসের মূল্য বাড়ার সাথে সাথে ছোট ছোট ব্যবসায়ীদের ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করছিলেন বিরোধীরা।কেন্দ্রে বিজেপি সরকার জি এস টি চালু করার সুফল মানুষের সামনে তুলে ধরার চেষ্টা করেও বহু জায়গায় ব্যর্থ হয়েছে। সদ্য সমাপ্ত পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির পরাজয়ের কারণ হিসেবে বিশেষজ্ঞরা জিএসটিকে দায়ী করেছে। সরকার আগামী লোকসভা নির্বাচনের আগে 28% GST তুলে জনমোহিনী নীতি তৈরি করে মানুষের মন জয় করতে চাইছেন বলে বলে করছে রাজনৈতিক মহল।

317Shares