দেশ বাঁচাতে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করতেই হবে : গিরিরাজ

population

রানার ডেস্ক : ভারতবর্ষকে বাঁচাতে হলে জনসংখ্যা বৃদ্ধিতে লাগাম পরাতেই হবে। এরজন্য দরকার কেন্দ্রীয় আইন। এই আইন যাতে তৈরি হয় তারজন্য যতদূর যেতে হয় যাবে। এমনকি এরজন্য প্রয়োজনে মন্ত্রীত্বও ছাড়তে তিনি রাজি বলে মন্তব্য করেন কেন্দ্রীয় ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোগ মন্ত্রী গিরিরাজ সিং। নয়ডায় জনসংখ্যা সমাধান ফাউন্ডেশ-এর পক্ষ থেকে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে একথা বলেন তিনি।

আরও পড়ুন : কালো টাকা ইস্যুতে বড়ো সাফল্য ভারতের!

গিরিরাজ বলেন, কেন্দ্রীয় আইন কঠোর করতে হবে। দুটোর বেশি সন্তানের জন্মদিলে তাঁর ভোটাধিকার কেড়ে নিতে হবে সেইসঙ্গে তাঁর বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থাও নেওয়া যাবে। রাষ্ট্রীয় সুযোগ-সুবিধা কাটছাট করার সংস্থানও রাখতে হবে আইনে। এই আইন যাতে তৈরি হয় তারজন্য তিনি সরকারে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে দাবি করেন বিহারের নওয়াদা কেন্দ্র থেকে নির্বাচিত বিজেপি সাংসদ গিরিরাজ। বলেন, যদি জনসংখ্যায় লাগাম পড়ানো না যায় তবে, জমির সমস্যা একদিন সমাধানের বাইরে চলে যাবে, সেইসঙ্গে বাসস্থান ও পানীয় জলের সংকট তীব্রতর হবে। পরিবেশ ধ্বংস হতে হতে একদিন ভারতবাসীর জীবন বিপন্ন হয়ে উঠবে। তাই যুদ্ধকালীন ভিত্তিতে কঠোর আইন দরকার।

আরও পড়ুন : নিজেকে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট থেকে দুরে রাখার কারন ব‍্যাক্ষা করলেন এই তারকা অভিনেত্রী

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বলেন, ভারতবর্ষে সবচেয়ে খারাপ দিক হলো সবকিছু নিয়ে এদেশে রাজনীতি হয়। জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের কথা বললেই রে রে করে তেড়ে আসে অনেকে , বলে মুসলিম বিরোধী কথাবার্তা বলা হচ্ছে। এরসঙ্গে আদৌ ধর্মের কোনও যোগ নেই কিন্তু ধর্মকে জুড়ে দেওয়া হয়। অথচ বিশ্বের ২২ টি মুসলিম দেশে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে কঠোর আইন আছে। তিনি উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, এদেশে বহু জায়গায় জনবিন্যাস দ্রুত বদলে যাচ্ছে। দেশে ৫৪ টি এমন জেলা আছে যেখানে মুসলিমরা এখন হিন্দুর থেকে সংখ্যায় বেশি। যেখানে মুসলিমরা সংখ্যায় বেশি হচ্ছে সেখানেই হিন্দুদের থাকা দুষ্কর হয়ে উঠছে। এই প্রসঙ্গেই তিনি কৈরানার উদাহরণ টেনে আনেন। বলেন, যেখানে হিন্দুরা সংখ্যায় বেশি সেখানে মুসলিমরা দিব্যি নিরাপদে আছে। উল্টোটা হলেই বিপন্ন হয়ে পড়ছে হিন্দুরা। গিরিরাজের কথায় কেন্দ্র আইন করলে সেই আইন শুধু মুসলিমদের ওপর প্রয়োগ হবে এমনটা নয়। তিনি বলেন আইন হলে তা হিন্দু , মুসলিম,শিখ , খ্রিস্টান , সকলের জন্য সমানভাবে প্রযোজ্য হবে। সুতরাং জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের সঙ্গে কোনও ধর্মকে জুড়ে দেবার বিরুদ্ধে জনসচেতনতা তৈরি করতে হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

2465Shares