সমীক্ষা: দমদম লোকসভা হারাতে পারে তৃণমূল কংগ্রেস

সবসংবাদ: দমদম হল উত্তর ২৪ পরগনা জেলার শহর কেন্দ্রিক লোকসভা। স্বাধীনতার পরে বারবার ক্ষমতা বদলে বাম, কংগ্রেস, বিজেপি, তৃণমূল সব দলেরই সাংসদ দিয়েছে দমদম। ১৯৯৮ সালে তপন শিকদার প্রথম বিজেপির টিকিটে ৫০.৭০ শতাংশ ভোট পেয়ে সংসদ হয়। ১৯৯৯ সালে পুনর্নির্বাচন হলে ৫১.৫৯ শতাংশ ভোট পেয়ে সাংসদ ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হন। ২০০৪ সালে ফের বামেদের হাতে চলে যায় এই আসনটি। ২০০৯ সালে তৃণমূল-কংগ্রেস জোটে জোড়াফুল প্রতীকে জেতে সৌগত রায়। ২০০৯ সালে ৪৭ শতাংশ ভোট পায় তৃণমূল-কংগ্রেস জোট।

আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন লোকসভা নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করে দিতে পারে। সারা দেশে নির্বাচনী নিয়ম কানুন চালু হয়ে যাবে। সমীক্ষাকারী সংস্থাগুলো ও সংবাদ মাধ্যম তাদের সমীক্ষার কাজ শুরু করে দিয়েছে। ‘সবসংবাদ’ ও ‘Opinion Poll 2019’ এর যৌথ উদ্যোগে চলছে সারা দেশ জুড়ে সমীক্ষা। লোকসভার আসন ভিত্তিতে যে সমীক্ষা চলছে তাতে দমদম লোকসভাতে বিজেপির জয়ের ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।

২০১৪ সালের ফলাফল:

রাজনৈতিক দল প্রার্থীপ্রাপ্ত ভোট ভোট শতাংশ পরিবর্তন
তৃণমূলসৌগত রায় 483,244
42.67
-4.37
সিপিএমঅসীম দাসগুপ্ত 328,310
28.99-15.95
বিজেপিতপন শিকদার 254,819
22.50+16.79
কংগ্রেসধনঞ্জয় মৈত্র 34,116
3.01+3.01

সবসংবাদ’ ও ‘ওপিনিয়ন পোল ২০১৯’ এর যৌথ সমীক্ষার ফলাফল:

মোট ১২৫৮০ জন দমদম লোকসভা এলাকার ভোটারের উপর সম্পূর্ণ বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে এই সমীক্ষা চালানো হয়। দমদমের অন্তর্গত সমস্ত বিধানসভা ক্ষেত্রের ভোটারদের মতামত এই সমীক্ষায় নেওয়া হয়েছে।
২০১৯ সালে লোকসভা নির্বাচনে দমদম কেন্দ্রে নির্বাচনে বিজেপি ৪২.০৪ শতাংশ ভোট পেয়ে জয়ী হতে পারে বলে সমীক্ষায় ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। তৃণমূল পেতে পারে ৪১.১৭ শতাংশ ভোট। বামেদের ভোট কমে ১২.৩৪ শতাংশে নামতে পারে বলে সমীক্ষায় ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। দমদম লোকসভা আসনে কংগ্রেসের তেমন কোনো পরিবর্তন দেখা যায় নি। কংগ্রেস পেতে পারে ২ শতাংশের একটু বেশি। তবে সমীক্ষায় একটি বার্তা স্পষ্ট হয়েছে যে বাম কংগ্রেস জোট হলে বামেদের তাতে তেমন কোনো লাভ হবে না। ত্রিমুখী প্রতিদ্ধন্দিতা হলেও জোর লড়াই লক্ষ্য করা যাবে বিজেপি তৃণমূলের মধ্যে।

তৃণমূলের প্রার্থী হিসাবে ফের সৌগত রায়ের নাম উঠে এসেছে সমীক্ষায়। বিজেপির প্রাক্তন সংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তপন শিকদারের মৃত্যুর পর এবারে এই লোকসভা কেন্দ্র বিজেপির প্রার্থী হিসাবে শমীক ভট্টাচার্যের নাম উঠে এসেছে। শমীক ভট্টাচার্য ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে বসিরহাটের থেকে প্রার্থী হন। পরে তিনি বসিরহাট বিধানসভার উপ নির্বাচনে জিতে বিধায়ক হন। তপন শিকদারের ভাইপো সৌরভ শিকদারের নামও বিজেপির প্রার্থী হিসাবে উঠে এসেছে।

এই সমীক্ষাটি সম্পূর্ণ বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে নির্বাচন কমিশনের গাইডলাইন মেনে করা হয়েছে। কোনো রাজনৈতিক দলের বা কোনো ব্যক্তি বিশেষের সুবিধা বা অসুবিধা করা এই সমীক্ষার লক্ষ্য নয়।

3685Shares